1. tohidulstar@gmail.com : sobuj ali : sobuj ali
  2. ronju@chapaidarpon.com : Md Ronju : Md Ronju
পলাশবাড়ি খাদ্য গুদাম থেকে ১৯৯ মেট্রিক টন ধান ও গম উধাও ॥ - দৈনিক চাঁপাই দর্পণ
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৭:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
‘লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন প্রধানমন্ত্রী পাঠানপাড়া সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়ে অভিভাবক সমাবেশ ও দেয়ালিকা ‘স্বপ্নযাত্রা’র উদ্বোধন ঈদুল আযহা উপলক্ষে ৮ দিন বন্ধ সোনামসজিদ স্থল বন্দরের কার্যক্রম বাংলাদেশের পরবর্তী সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান ভারতের নতুন সেনাপ্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল উপেন্দ্র দ্বিবেদী নাচোলে ভূমিসেবা সপ্তাহ পালন উপলক্ষে জনসচেতনতামূলক সভা নামোশংকরবাটী উচ্চ বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান মেলার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিএমডিএ’র কৃষক-অপারেটর ও ডিলার প্রশিক্ষণ চাঁদপুরে আধিপত্য বিস্তারে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে যুবক নিহত-আহত ৪০ সৌদিতে এ পর্যন্ত ১৫ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

পলাশবাড়ি খাদ্য গুদাম থেকে ১৯৯ মেট্রিক টন ধান ও গম উধাও ॥

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৭ জুন, ২০২৪
  • ৩১ বার পঠিত

মামলা দায়ের ॥ অভিযুক্ত কর্মকর্তা গায়েব

পলাশবাড়ি খাদ্য গুদাম থেকে ১৯৯ মেট্রিক টন ধান ও গম উধাও ॥

গাইবান্ধার পলাশবাড়ি খাদ্য গুদাম থেকে ১’শ ৯৯ মেট্রিক টন চাল ও গম গায়েব হয়ে গেছে। বিভাগীয় তদন্তের পর এঘটনায় পলাশবাড়ি থানায় খাদ্য গুদাম কর্মকর্তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার পর থেকে খাদ্য কর্মকর্তা কর্মস্থল থেকে চম্পট দিয়েছেন। গাইবান্ধা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিস জানায়, পলাশবাড়ি খাদ্য গুদামের দায়ীত্বে কর্মকর্তা ছিলেন আব্দুল্লাহ মাসুম সিদ্দিকী। গাইবান্ধার জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক নিয়মিত পরিদর্শনের সময় গত ২০ অক্টোবর ১৯৯ মেট্রিক টন চাল ও গমের বস্তার ঘাটতি দেখতে পান। যার মুল্য ১ কোটি ২৯ লাখ ৪৩ হাজার টাকা। ঘটনার পর তিনি গত ২১ মে ভারপ্রাপ্ত খাদ্য কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ মাসুম সিদ্দিকীকে ষ্ট্যান্ড রিলিজ করেন। পরে ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত টীম গঠন করে ঘটনার সত্যতা খুঁজে পাওয়ায় অভিযুক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ৪ জুলাই উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বাদী হয়ে পলাশবাড়ি থানায় অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ মাসুম সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। গাইবান্ধা সদর সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক শাকিব রেওয়ানকে আহবায়ক করে চার সদস্েযর তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, জেলা সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আবু হেনা মোস্তফা কালাম, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুস সোবহান ও গাইবান্ধা খাদ্য পরিদর্শক আল আউয়াল। উক্ত কমিটির সদস্যরা চাল, গম ও বস্তুা উধাওয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ওই পরিমান খাদ্যশস্য ও সামগ্রী তছরুপ করা হয়েছে।
এব্যাপারে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো.মিজানুর রহমান বলেন, সম্প্রতি খাদ্য বিভাগের মহাপরিচালক এক আদেশে ওসিএলএসডি আব্দুল্লাহ আল মামুন সিদ্দিককে স্ট্যান্ড রিলিজ করে সিলেট বিভাগে যোগদানের নির্দেশ দেন। গত ১৯ মে তার কর্মস্থলে যোগদানের কথা। মামলার পর থেকে তিনি কর্মস্থল থেকে লাপাত্তা হয়েছেন। মামলাটি বর্তমানে তদন্তের জন্য দুদকে পাঠানো হয়েছে। পলাশবাড়ী থানার ওসি তদন্ত লাইসুর রহমান জানান, অভিযোগটি ইতিমধ্যে দূর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তদন্তের জন্য পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
Copyright All rights reserved © 2024 Chapaidarpon.com
Theme Customized BY Sobuj Ali
error: Content is protected !!